You are here: Home / বারোয়ারি / ফটোশপের কারিগরি নয়, প্রকৃতির খেয়াল ১০০% প্রাকৃতিক গাজর

ফটোশপের কারিগরি নয়, প্রকৃতির খেয়াল ১০০% প্রাকৃতিক গাজর

বিশ্বাস করুন ১০০% প্রাকৃতিক গাজর
গাজর

সবজি হিসাবে গাজর আমাদের অতি পরিচিত, শীতকালীন সবজি হিসাবে গাজর আমাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় একটি অপরিহার্য উপাদান। আমাদের দেশে সাধারনত কমলা রঙয়ের গাজরই পাওয়া যায়। গাজরের ব্যাবহার সালাদেই বেশী হয়, আর এই সালাদকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলার কাজে ব্যাবহার হয় নানান রঙয়ের গাজরের। বিশ্বের নামী দামী পাঁচ তারকা হোটেল সমূহে ভেজিটেবল সালাদ বানাতে ব্যবহার হওয়া এই বাহারি গাজর নিয়েই আমাদের এই আয়োজন।

সাদা গাজর

গাজর

সাদা গাজর পৃথিবীর প্রাচীনতম গাজরের প্রজাতি। আগে সাদা গাজর গবাদিপশুকে খাওয়ানো হত। পরবর্তীতে বিজ্ঞানিগন গবেশনার মাধ্যমে আই গাজরকে আরও উন্নত করেন।এই গাজরের বিশেষত্ব হল এই গাজরে অন্যান্য গাজরের তুলনায় বেশি পরিমানে ফাইবার থাকে। এই গাজর যৌগিক কান্সার ও স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। গাজরের এই ফাইবার খাদ্যতালিকাগত কোলন ক্যান্সারের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সহায়তা করে।

বেগুনি গাজর

গাজর

বেগুনি গাজর প্রায় ৫০০০ বৎসর আগে থেকেই আফগানিস্তান এ চাষ হত। এ ধরনের গাজর মস্তিস্কের বিকাশ, দৃষ্টি উন্নত, ওজন নিয়ন্ত্রন এবং হার্ট এ্যাটাক এর ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। এই গাজর ১ ফুট পর্যন্ত লম্বা হতে পারে।

লাল গাজর

লাল গাজর ১৭০০ সাল থেকে ভারত, জাপান ও চীন এ সমাদৃত। এ গাজরের রঙ  দেখতে অনেকটা লাল টম্যাটোর মত।অন্যান্য গাজরের মতও আই গাজরেও ক্যানসার এর ঝুঁকি কমানোর উপকরন রয়েছে। সালাদে এই ধরনের গাজর বেশি ব্যবহার হয়।

গাজর

হলুদ গাজর

হলুদ গাজর ৯০০ সালের দিকে মধ্যপ্রাচ্চে আবিষ্কৃত হয়। এই ধরনের গাজর বিভিন্ন ফাইভ স্টার হোটেলে সালদ এর উপকরন হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে।

 প্রাকৃতিক গাজর

এই সব ধরনের গাজরের রঙ বিভিন্ন হলেও পুষ্টিগুণ সাধারনত এক। খাবার পরিবেশনের সময় খাবারকে আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য এই ধরনের গাজর ব্যবহার করা হয়।

Leave a Reply

Scroll To Top