You are here: Home / শখের বাগান / ব্যাগে আলু চাষ

ব্যাগে আলু চাষ

ব্যাগে আলু চাষ

নগর পরিবেশে আপনার যদি নিজের উঠানে বাগান করার মত যথেষ্ট জায়গা থাকে তবে বেশ ভাগ্যবানই আপনাকে বলতে হবে। আর তা না থাকলেও আপনাকে ভাগ্যহীন বলার কোন সুযোগ নেই। শহুরে সিমিত পরিবেশে আপনি যদি নিজেই আলু ফলাতে চান সে জন্য আপনার জন্য আছে ব্যাগে চাষ পদ্ধতি।

শখের বশে আলু চাষ!! আপনি যতটা কঠিন ভাবছেন অতটা কঠিন কাজ নয় মোটেই। আর আপনি যদি ব্যাগে উৎপাদন করতে চান, এটা সবচেয়ে স্বল্প পরিসরে, ছোট বাগানে কিংবা ব্যালকনিতে উৎপাদন করার সবচেয়ে উত্তম পদ্ধতি।ব্যাগে আলু চাষ আলু উৎপাদন করা রোগাক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তুলনামূলক ভাবে অনেক কম থাকে।

সহজে আলু ফলান

সুবিধাঃ

১।ঝামেলাহীন।

২।সারের অপচয় হয় না।

৩।স্বল্পস্থানে অধিক ফলন হয়।

৪। ফসল আহরণ করা সহজ।

ব্যাগে বাগান

ব্যাগের মধ্যে কিভাবে আলু চাষ করতে হয়ঃ

সীমিত পরিসরে আলু উৎপাদন করতে হলে ব্যাগে উৎপাদন করাই সবচেয়ে উপযোগী পন্থা। প্রথমদিকে মাটির সাথে সংস্পর্শ  রেখে ব্যাগে চাষ করা হত। কিন্তু পরবর্তীতে থমসন এবং মরগ্যান দেখান যে ব্যাগে আলু চাষে মাটির স্পর্শ থাকা আবশ্যক নয়। তাই শখের বশে আলু চাষ করতে হলে ব্যাগে চাষ করাটাই ঝামেলাহীন।

আলু উৎপাদনের সহজ উপায়

ব্যাগে আলু ফলান মাত্র দুটি সহজ ধাপে

মাটি কখনোই এক সাথে ভরবেন না। মাটি ভরতে হবে ধাপে ধাপে। চারা রোপণের সময় ব্যাগের তিনভাগের এক অংশ কম্পোস্ট মিশ্রিত মাটি দ্বারা ভর্তি করতে হবে। গাছ যত বাড়বে তত মাটি দ্বারা ভরে দিতে হবে। এভাবে পুরো ব্যাগ মাটি দ্বারা ভরতে হবে। আলু গাছের শিকড় যত মাটির নিচে থাকবে তত বেশি ফলন হবে। শিকড় যত পাশে ছড়াবে ফলন তত কম হবে। ব্যাগে শিকড় পাশে ছড়ানোর সুযোগ কম তাই ব্যাগে উৎপাদন সাশ্রয়ী ও লাভজনক।

তারপর আলুর কাটিং অংশগুলো ঠিক এর উপরেই লাগাতে হবে। আর যদি বীজ বপন করতে হয় তবে তিনভাগের দুইভাগ মাটি দ্বারা পূর্ণ করতে হবে।

এরপর পানি দিতে হবে, এবং ব্যাগটিকে আলোকপূর্ণ স্থানে রাখতে হবে। ব্যাগের মাটিগুলো শুঁকিয়ে গেলে এক সপ্তাহ পরপর সার এবং কম্পোস্ট মিশ্রিত মিটি দিয়ে ব্যাগটি পরিপূর্ণ ভাবে ভরতে হবে।

ব্যাগে আলু

ফসল উত্তোলনঃ

ফসল কখন উঠাবেন এটা নির্ভর করে দুটি বিষয়ের উপর, এক আপনি কখন রোপণ করলেন আর কি আকারের ফসল চান। ফসল আগে পেতে হলে অবশ্যই আগে রোপণ করতে হবে। আর আলুর আকার বড় পেতে হলে ফসল উত্তলনের জন্য একটু অপেক্ষা করতে হবে। কচি আলু পেতে হলে গাছে ফুল আসার সাথে সাথে ফসল উঠাতে হবে। সাধারণত চারা রোপণের ১০ সপ্তাহ পর গাছে ফুল আসা শুরু করে।পূর্ণাঙ্গ ফলন পেতে হলে গাছ মরে শুকানো পর্যন্ত অপেক্ষা করা উচিত। ফসল তোলার পর শুষ্ক আলো বাতাসে কয়েক ঘণ্টা রাখা উচিত এতে ফসল বহুদিন সংরক্ষণ করা যাবে।

বারান্দায় বাগান

ছাদে বাগান

ছবি ও তথ্যঃ ওয়েবসাইট

Leave a Reply

Scroll To Top