You are here: Home / প্রযুক্তি প্রেমী / মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট ২০১৩ এর সুবিধা সমূহ

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট ২০১৩ এর সুবিধা সমূহ

ব্যবসাবাণিজ্য কিংবা অফিশিয়াল কাজে প্রেজেন্টেশন একটি অপরিহার্য বিষয়, এমনকি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়া ছাত্র শিক্ষক সবাইকেই প্রেজেন্টেশন দিতে হয় বা তথ্য উপস্থাপন করতে হয়। আর এক্ষেত্রে মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট এর শরণাপন্ন হই আমরা। আর মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট এ আমরা তথ্যকে অনেকগুলো স্লাইড এর মধ্যে ভাগ করে একটি গল্পের মত করে উপস্থাপন করি। এক একটি পাওয়ার পয়েন্ট স্লাইডকে শিল্পীর ক্যানভাস কল্পনা করুন আর চিন্তা করুন যেখানে আপনি চাইলেই শব্দ, বর্ন, ছবি, ভিডিও, চার্ট কিংবা গ্রাফিক্যাল শেপ ব্যবহার করে প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে পারতেছেন। মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট এর বেসিক জানা থাকলেই আপনি বুজতে পারবেন মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট ২০১৩ এর সুবিধা সমূহ।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

শুরুতেই ভিন্নতাঃ মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট ২০১৩ ওপেন করা মাত্রই আপনাকে যেই পেজটি দেখাচ্ছে তা আগের থেকে অনেক সহজ ও দ্রুত আপনাকে প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে সহযোগিতা করবে। এই পেজ এর বাম দিকে সর্বশেষ যে কয়টি প্রেজেন্টেশন নিয়ে আপনি কাজ করেছেন তা দেখাবে আর ডান পাশে পুরোটা জুড়ে থিম অপশন দেখাবে যাতে করে আপনি সহজেই থিম সিলেক্ট করে কাজ শুরু করে দিতে পারেন। এক্ষেত্রে আরেকটি বড় সুবিধা হলো যদি ডিফল্ট থিমগুলো আপনার পছন্দ না হয় সেক্ষেত্রে আপনি অনলাইন থেকে সার্চ দিয়ে আরো থিম দেখতে পারেন আর এই অপশনটি ঠিক উপরের দিকেই আছে। অনেকগুলো ক্যাটাগরিতে ভাগ করে দেয়া আছে যেমন- প্রেজেন্টেশনস, বিজনেস, অরিয়েন্টেশন, এডুকেশন, পার্সোনাল ও ব্লু ইত্যাদি। আপনি আপনার প্রয়োজন অনুযায়ী ক্যাটাগরি বেছে নিয়ে কাজ করতে পারেন।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

থিম কালার অপশনঃ ২০১৩ ভার্সনে থিম সিলেক্ট করার পর কালার অপশন আসবে যেখান থেকে আপনি চাইলে থিমের কালার পরিবর্তন করে নিতে পারবেন। কিছুটা হালকা অথবা গাঢ় কালার নিতে পারেন। আর আগের মতো ম্যানুয়ালি পরিবর্তন করার অপশন তো থাকছেই।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

অটো গ্রিড লাইন অপশনঃ মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট ২০১৩ তে সবচেয়ে যে বিষয়টি আমার কাজে লাগে তা হল এই অটো গ্রিড লাইন অপশন। ধরুন ২টি টেক্সট বা শেপকে সমানভাবে আপনি পাশাপাশি রাখতে চাচ্ছেন সেক্ষেত্রে আপনি যে কোন একটি টেক্সটকে টেনে আনলে পাওয়ার পয়েন্ট অটো গ্রিড লাইন শো করবে যা দেখে আপনি বুজতে পারবেন সমান ভাবে বসছে কিনা মান্যুয়ালি করার প্রয়োজন হবেনা।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

Merge shape অপশনঃ এই অপশনটি আপনাকে দুইটি শেপকে এক করা, একটি শেপ থেকে আরেকটি শেপকে বাদ দেয়ার কাজে সহযোগিতা করবে।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

অডিও, ভিডিও ও ইমেজ যুক্ত করার অপশনঃ নতুন পাওয়ার পয়েন্টে ভিডিও যুক্ত করার চমৎকার অপশন আছে সাথে ভিডিও এমবেড অপশনতো থাকছেই। শুধুমাত্র ভিডিও নয় যে কোন ছবি কিংবা অডিও পেতে আপনি পাওয়ার পয়েন্টে bing search এর মাধ্যমে সার্চ দিয়ে ব্যাবহার করতে পারেন এক্ষেত্রে কপিরাইট নিয়ে কোন চিন্তা নাই কারন সার্চ রেজাল্ট গুলো সব ক্রিয়েটিভ কমন লাইসেন্স করা। ভিডিও সার্চ এর জন্যে আপনি youtube এর সাহায্যও নিতে পারেন।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

ভিডিও সেভ ফরমেটঃ পাওয়ার পয়েন্ট ২০১০ এ প্রেজেন্টেশন শুধুমাত্র wmv ফরমেট এ সেভ করা যেত কিন্তু ২০১৩ তে আপনি এখন mp4 ফরমেটে সেভ করতে পারবেন। অর্থাৎ এখন প্রেজেন্টেশনকে mp4 ফরমেট ভিডিও বানিয়ে আপনি যে কোন প্লেয়ারে ভিডিওটি দেখতে পারবেন যেটা ২০১০ এ করলে আপনাকে আলাদা ভাবে codec pack নামিয়ে দেখতে হতো। এখন LCD টিভিতেও mp4 ফরমেট প্লেয়ার বিল্ট-ইন দেয়া থাকে।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

অ্যানিমেশন প্লে-ফর্মঃ অ্যানিমেশন পাওয়ার পয়েন্টের প্রান বটে। প্রেজেন্টেশন তৈরি করতে হলে আপনাকে বেশিরভাগ সময় অ্যানিমেশন নিয়ে কাজ করতে হবে। ২০১৩ পাওয়ার পয়েন্টে আপনি প্রত্যেকটি অ্যানিমেশনকে আলাদা আলাদা করে প্লে করে দেখতে পারবেন। এতে করে আপনার সময় বাঁচবে আবার বার বার পুরোটা স্লাইড প্লে করার ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবেন।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

আই-ড্রপার অপশনঃ সর্বশেষ আমি যে বিষয়টি নিয়ে বলবো অত্যন্ত মজার এই বিষয়টি হলো eyedropper অপশন যা মাধ্যমে আপনি যে কোন কালার ব্যবহার করতে পারবেন অনায়াসেই। ধরুন কোন ছবিতে একটি কালার দেখে আপনার খুব পছন্দ হয়েছে ঠিক ঐ কালারটি আপনি আপনার প্রেজেন্টেশনের কোন টেক্সট কিংবা শেপ এ ব্যবহার করতে চান তাহলে আপনাকে সবচেয়ে বেশি সহযোগিতা করবে এই টুলটি।

মাইক্রোসফট পাওয়ার পয়েন্ট

 

Leave a Reply

Scroll To Top