You are here: Home / পার্থিব / চোখের নিচে কালো দাগ দূর করার সহজ উপায়

চোখের নিচে কালো দাগ দূর করার সহজ উপায়

চোখের নিচে কালো দাগ হওয়া কোন মেডিক্যাল সমস্যা নয়। তারপরও যেহেতু এটা চোখের সাথে সম্পর্কিত এবং দেখতে খারাপ লাগে সেজন্য এর চিকিৎসা প্রয়োজন। অনেক ডাক্তার লেজার থেরাপি বা মেডিক্যাল পিলের কথা বলে থাকেন যা কালো দাগ দূর করার জন্য উপকারী। আবার কিছু ত্বক বিশেষজ্ঞ আছেন যারা হাইড্রোকুইনোন ওয়েল ফ্রি ময়েশ্চারাইজিং ক্রিমের সাথে মিশিয়ে ব্যবহারের পরামর্শ দেন। কয়েক মাস ব্যবহারের পর দাগ হালকা হয়ে যায়। কারণ এতে রয়েছে ব্লিচিং এজেন্ট। কিন্তু এগুলো কোনো  স্থায়ী সমাধান নয়।

বর্তমানে হারবাল চিকিৎসা জনপ্রিয় হওয়ায় রোগ নিরাময়ে এবং সৌন্দর্য চর্চায় হারবালের রয়েছে চাহিদা। বিভিন্ন প্রাকৃতিক উপাদান বা ন্যাচারাল জিনিসের সাহায্যে চিকিৎসা করা হয় বলে এর কোন পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া নেই। নিম্নে চোখের নিচের কালো দাগ দূর করার জন্য কতিপয় হারবাল পদ্ধতি দেয়া হল:-

চোখের নিচে কালো দাগচোখের নিচে কালো দাগ

>> ঠাণ্ডা টি-ব্যাগ বা বরফ পাতলা কাপড় দিয়ে পেঁচিয়ে লাগাতে হবে। চায়ের ট্যানিন চোখের পাতার ফোলা এবং দাগ দূর করতে কার্যকর। টি-ব্যাগ সারারাত ফ্রিজে রেখে সকালে ব্যবহার করলে ভাল কাজে দেবে। এক্ষেত্রে হারবাল টি-ব্যাগ ব্যবহার করা যাবেনা। কারণ হারবাল টি-ব্যাগ তেমন কার্যকর নয়।

চোখের নিচে কালো দাগ

>> ঠাণ্ডা শসার স্লাইস বা আলুর টুকরো চোখের দাগ দূর করার জন্য কার্যকর। চোখ বন্ধ করে ঠাণ্ডা শসার স্লাইস চোখের উপরে দিয়ে রাখতে হবে ১৫-২০ মিনিট।

চোখের নিচে কালো দাগ

>> যারা দাগ দূর করার জন্য আই ক্রিম ব্যবহার করেন তারা অবশ্যই খেয়াল রাখবেন ক্রিমটি ভিটামিন-কে সমৃদ্ধ কিনা, কারণ অনেক সময় ভিটামিন-কে’র অভাবে চোখের নিচে কালো দাগ পড়ে। সাম্প্রতিককালের এক গবেষণায় দেখা গেছে যে, ভিটামিন-কে এবং রেটিনল সমৃদ্ধ আই ক্রিম দাগ দূর করতে ভীষণ কার্যকর।

এছাড়াও কিছু নিয়ম নীতি রয়েছে যেগুলো দাগ দূর করার জন্য অবশ্যই পালন করতে হবে। যেমন:-

>> প্রচুর পরিমানে পানি ও তরল খাবার খেতে হবে। দিনে কমপক্ষে ৩-৪ লিটার বিশুদ্ধ পানি পান করতে হবে।

চোখের নিচে কালো দাগ

>> চোখের দাগ দূর করার জন্য ঘুম অপরিহার্য। প্রতিদিন কমপক্ষে ৭-৮ ঘন্টা বিরতিহীনভাবে ঘুমাতে হবে।

চোখের নিচে কালো দাগ

>> সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত অযথা রোদে ঘোরাঘুরি করবেন না। যদি একান্তই বাইরে যেতে হয় তাহলে একান্ত সানস্ক্রিন ক্রিম (SPF – 30), ছাতা এবং সানগ্লাস ব্যবহার করুন।

>> এলার্জি জনিত কারনে সাধারণত চোখ চুলকায়। সেজন্য এলার্জি সিজনে সাবধান থাকতে হবে এবং যে সমস্ত জিনিস এলার্জি তৈরি করে সেসব থেকে দূরে থাকতে হবে। কখনো চোখ চুলকাবেন না। কারন চোখ চুলকানো বা ঘসার সময় ত্বকের নিচে ছোট ছোট ক্যাপিলারীগুলো ভেঙ্গে যায়, যার কারনে চোখের নিচের পারা ফুলে যায় এবং কালো হয়ে যায়।

>> প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি, কে, ই ও বি১২ সমৃদ্ধ ফলমূল ও শাক সবজি খেতে হবে। কারণ এ সমস্ত ফলমূল ও শাকসবজি ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে।

চোখের নিচে কালো দাগ

>> এন্টি অক্সিডেন্টসমৃদ্ধ ফলমূল বা ফলের তৈরি বিভিন্ন জুস খেতে হবে। এন্টি অক্সিডেন্ট রক্তনালীকে মজবুত করে। রক্তনালীর প্রাচীরকে প্রসারিত হয়ে যাওয়া থেকে রক্ষা করে।

চোখের নিচে কালো দাগ

>> খাবারের অতিরিক্ত লবণ বাদ দিতে হবে। অতিরিক্ত লবণ রক্ত সরবারাহে বাধা সৃষ্টি করে ফলে ত্বকের নিচের রক্তনালীগুলো স্পষ্ট হয়ে ওঠে এবং নীলচে রং ধারন করে।

চোখের নিচে কালো দাগ>> ধূমপান বর্জন করতে হবে। ধূমপান শুধু শ্বসনতন্তেরই ক্ষতি করে না রক্তনালীরও ক্ষতি করে। ধূমপানের কারনে ত্বকের নিচে রক্তনালীগুলো স্পষ্ট হয়ে ওঠে ও নীলচে রঙ ধারণ করে।

সতর্কতা

  • টি ব্যাগের ব্যাপারে খেয়াল রাখতে হবে। যাদের এলার্জি আছে তাদের ক্ষেত্রে কেমোমাইল পূর্ণ টি ব্যাগ ব্যবহারের কারনে চোখে এলার্জি দেখা দিতে পারে বা চোখ ফুলে যেতে পারে।
  • বরফ বা অতিরিক্ত ঠাণ্ডা পানি সরাসরি চোখে ব্যবহার করবেন না ।

 

কৃতজ্ঞতাঃ ডা. আলমগীর মতি

Leave a Reply

Scroll To Top