You are here: Home / পার্থিব / সৌন্দর্যের প্রতীক চুলের বড় হওয়ার রহস্য

সৌন্দর্যের প্রতীক চুলের বড় হওয়ার রহস্য

চুল নিঃসন্দেহে নারি পুরুষ সকলের সৌন্দর্যের প্রতীক। তাছাড়া চুল পড়া আর নতুন চুল উঠা এই নিয়ে নানান গবেষণা দেখেই ধারনা করা সম্ভব বিষয়টা কতো সিরিয়াস। আসলে চুল কি আর চুলের বড় হওয়ার রহস্য নিয়ে কখনো ভেবেছেন কি?

চুলের বড় হওয়ার রহস্য

চুল আসলে কি?

চুল মুলত ত্বকের ভিতর থেকে বের হওয়া প্রোটিন জাতীয় সুতাকৃতির অংশ। এটি যে প্রোটিন দিয়ে তৈরি তাকে কেরাটিন বলে। ঠোঁট, চোখের পাতা এবং হাত ও পায়ের তালু ব্যতিত দেহের সব জায়গায়ই কম বেশি চুল গজায়। ত্বকের নিচে ফলিকল থেকে চুল গজায় এবং প্রতিটি চুলই আভ্যন্তরীনভাবে কেরাটিনের ২ বা ৩ টি স্তর দিয়ে গঠিত। প্রতিটি ফলিকলের নিচে একগুচ্ছ বিশেষ কোষ থাকে যা হেয়ার রুট বা চুলের মুল বলে পরিচিত। এই হেয়ার রুটের গোড়ায় থাকে হেয়ার বালব যেখানে পুষ্টি জমা হয় এবং এখান থেকেই নতুন কোষ তৈরি হয় ফলে চুল বৃদ্ধি পায়। চুলের প্রধান উপাদান হল কেরাটিন।

চুলকে লম্বালম্বিভাবে ৩টি অংশে ভাগ করা যায়। যথা-

(ক) বালব – ত্বক থেকে উদ্ভূত চুলের গোড়ার স্ফীত অংশ

(খ) রুট – ত্বকের নিচে চুলের যে অংশ থাকে

(গ) শ্যাফট – ত্বকের উপরে চুলের যে অংশ থাকে

চুলের বড় হওয়ার রহস্য

আড়াআড়ি সেকশনেও চুলের ৩টি অংশ পরিলক্ষিত হয়। যথা-

(ক) মেডুলা – কোরের ভিতরের অংশ, যেখানে আলগা কোষ এবং ফাঁকা জায়গা থাকে

(খ) কটেক্স – যা কেরাটিনের ঘন আস্তরণ

(গ) কিউটিকল – কোষের এক স্তর বিশিষ্ট ছাদের ন্যায় আবরন

চুলের বড় হওয়ার রহস্য

কিভাবে চুল বৃদ্ধি পায়

হেয়ার বালব ডার্মাল প্যাপিলা থেকে পুষ্টি সংগ্রহ করে নতুন কোষ গঠন করে। এই কোষগুলো হেয়ার রুটের মধ্য বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয় এবং পুর্ণতা প্রাপ্ত হয়। এই পদ্ধতিকে বলে কেরাটিনাইজেশন।

একটি পুর্ণতা প্রাপ্ত চুল সুতাকৃতিক প্রোটিন দিয়ে পুর্ণ এবং প্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ার পার এর নিউক্লিয়াস ভেঙ্গে যাওয়ার পর চুল বেশি লম্বা হতে পারে না। এই সময় চুল ত্বকের বাইরে বের হয়ে আসে যা শুধুমাত্র সুতাকৃতির কেরাটিনাইজড প্রোটিন। সুতাকৃতির প্রোটিন হেয়ার শ্যাফট হিসেবে ফলিকল থেকে উৎপন্ন হয়। ২টি স্তরবিশিষ্ট বিশেষ গঠনে হয় চুল। বাইরের দিকে যে কেরাটিন স্কেলের আবরণ থাকে তাকে কিউটিকল বলে। মাঝের স্তরটি কেরাটিনাইজড প্রোটিন তন্তু দিয়ে গঠিত কোর (Core) তাকে বলে মেডুলা। কোকড়া চুলে সবসময় মেডুলা বিদ্যমান থাকে এবং মসৃণ, উজ্জ্বল চুলে সাধারণত অনুপস্থিত থাকে।

চুলের বড় হওয়ার রহস্য

প্রকৃতপক্ষে, চুলের প্রায় ৯১% প্রোটিন থাকে যা এমাইনো। এসিডের লম্বা চেইন দ্বারা গঠিত। চুলের কটেক্সের তন্তুর মধ্যে এই চেইনগুলো দেখা যায়। এমাইনো এসিডের এই চেইনগুলো কার্বন, অক্সিজেন, হাইড্রোজেন, নাইট্রোজেন এবং সালফার একত্রে পলিপেপটাইড বন্ড গঠনের মাধ্যমে হয়। পেপটাইড বন্ডের লম্বা চেইনকে বলে পেপটাইড চেইন। এই পলিপেপটাইড চেইন বৃদ্ধির সাথে চুল বৃদ্ধি পায়।

 

কৃতজ্ঞতাঃ ডা. আলমগীর মতি

Leave a Reply

Scroll To Top